ফুটবল
এখন মাঠে
নারী লিগ বাড়লে ফুটবলারদের মানও বাড়বে: সানজিদা
দেশের ঘরোয়া পর্যায়ে লিগের সংখ্যা বাড়ানো হলে নারী ফুটবলারদের মান আরও বাড়বে। ভারতীয় ক্লাবের হয়ে খেলে এসে এমনটাই জানিয়েছেন জাতীয় নারী দলের ফুটবলার সানজিদা আক্তার।

দেশের প্রথম কোন নারী ফুটবলার হিসেবে ইস্টবেঙ্গলের হয়ে খেলে দেশে ফিরেছেন সানজিদা আক্তার। মাত্র ছয় ম্যাচ খেলেই আলো ছড়িয়েছেন ভারতীয় নারী ফুটবল লিগে। বিশেষ করে ওডিশা এফসির বিপক্ষে তার করা ফ্রি-কিক গোল প্রশংসা কুড়িয়েছে সর্বত্র।

এমনিতে দেশের মেয়েরা প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলার খুব বেশি একটা সুযোগ পায় না। দেশে একমাত্র নারী প্রিমিয়ার লিগ যেটা হয়, তার মান নিয়েও আছে প্রশ্ন। অন্যদিকে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে নারীদের নিয়ে হয় একাধিক লিগ। লাল সবুজের মেয়েদের ফুটবলে মান বাড়াতে লিগের সংখ্যা বাড়ানো উচিত বলে মত জাতীয় দলের এ নারী ফুটবলারের।

সানজিদা বলেন, 'আমাদের দেশে মাত্র একটা লিগ হয়। কিন্তু তাদের দেশে প্রথম-দ্বিতীয় বিভাগসহ প্রতিটা লেভেলে নারীদের লিগ হয়। এ জন্য আমাদের দেশেও এরকম চালু করা উচিত।'

মোনেম মুন্না, শেখ আসলামদের মতো তারকা ফুটবলার একসময় মাতিয়েছেন লাল হলুদের এই ক্লাব। এর তিন দশকেরও বেশি সময় পর কোন বাংলাদেশি খেলতে গিয়েছে ইস্টবেঙ্গলে। দেশের তারকা ফুটবলারদের মতো এ ক্লাবে খেলতে পেরে তিনি রোমাঞ্চিত। ভবিষ্যতে সুযোগ পেলে আবারও খেলতে চান ক্লাবটির হয়ে।

সানজিদা আরও বলেন, 'দেশের সুনাম ধরে রাখতে চেষ্টা করেছি। কারণ আমাদের দেশের তারকারা এই ক্লাবে ভালো খেলে এসেছে। আমি যদি না পারি তাহলে বিষয়টা ভালো দেখায় না।'

চলতি বছর অক্টোবরে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হবে সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের আসর। দক্ষিণ এশিয়ার সর্বোচ্চ মর্যাদার এ আসরের চ্যাম্পিয়নও লাল সবুজের জার্সিধারীরা। দেশের এই অর্জন এবারও ধরে রাখতে চান এ কৃতি ফুটবলার। আর এ জন্য ভারতের নারী লিগের খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চান তিনি। বলেন, 'প্রতিটা দলেই বিদেশি খেলোয়াড় ছিল। তাদের সঙ্গে খেলে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি।'

ইস্ট বেঙ্গলে সানজিদা প্রথম হলেও এর আগে ভারতীয় লিগে খেলার অভিজ্ঞতা আছে সাবিনা খাতুনেরও। ভারত ছাড়াও সাবিনা খেলেছেন মালদ্বীপের লিগে। তাদের এ ধারা ভষ্যিতেও অব্যাহত রাখবে দেশের মেয়েরা। এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।

এভিএস