অর্থনীতি
কাপ্তাই বিদ্যুৎকেন্দ্রের পাঁচ ইউনিটের একটি সচল, উৎপাদন কমে ৩০ মেগাওয়াট
কাপ্তাই হ্রদে পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় রাঙামাটির কাপ্তাইয়ে অবস্থিত দেশের একমাত্র পানি বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

দৈনিক ২৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন কেন্দ্রের ৫টি ইউনিটের মধ্যে কেবল একটি ইউনিট থেকে ৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন হচ্ছে।

অনাবৃষ্টি ও প্রচণ্ড তাপদাহে কাপ্তাই হ্রদের পানি শুকিয়ে যাওয়ার ফলে এই সংকট দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সকাল ১১টা পর্যন্ত কাপ্তাই হ্রদে পানির পরিমাণ ছিল ৮০.৪৭ ফুট এমএসএল (মীন সী লেভেল)। রুল কার্ভ অনুযায়ী, বর্তমানে হ্রদে পানি থাকার কথা ৮৯.০০ এমএসএল এবং কাপ্তাই হ্রদে পানির ধারণ ক্ষমতা ১০৯ এমএসএল। যেখানে ৮ দশমিক ৫৩ এমএসএল পানি কম রয়েছে। এতে শুধু একটি ইউনিট থেকে ৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন হচ্ছে।

যে কারণে পানি স্বল্পতায় বাকী চারটি ইউনিট বন্ধ রয়েছে। তবে পানির স্তর ৬৬ এমএসএলের নিচে নেমে গেলে তাকে বিপদসীমা হিসেবে ধরা হয়ে থাকে।

পানির অভাবে কেন্দ্রের চারটি ইউনিট সচল রাখা সম্ভব হচ্ছে না। সেজন্য বিদ্যুৎ উৎপাদন কমে গেছে বলে জানিয়েছেন কর্ণফুলী পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক এটিএম আব্দুজ্জাহের।

তিনি বলেন, 'বর্তমানে একটি মেশিন সচল রয়েছে, যাতে ৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। কাপ্তাই লেকে পানি না থাকায় মেশিন চালানো যাচ্ছে না। পর্যাপ্ত পানি পাওয়া না গেলে উৎপাদন বন্ধ করা ছাড়া উপায় থাকবে না। তবে আরও চারটি মেশিন স্ট্যান্ডবাই রয়েছে। পানির যোগান পর্যাপ্ত হলেই এগুলো উৎপাদনে আসবে।'

ইএ