অর্থনীতি
বাজার
দেশের বাজারে অবৈধ ভারতীয় চিনি, রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার
দেশের বাজারে অবৈধ ভারতীয় চিনি আসায় সরকার বছরে তিন হাজার কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স এসোসিয়েশন।

শনিবার (৩১ মার্চ) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানায় সংস্থাটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রতিদিনই অবৈধভাবে দেশের জনগণের চাহিদার প্রায় ২৫ শতাংশ নিম্নমানের চিনি অবৈধভাবে সীমান্ত দিয়ে দেশের বাজারে আসছে। এতে করে সরকার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বছরে আনুমানিক তিন হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। একইসঙ্গে ভোক্তা নিম্নমানের চিনি ক্রয় করে প্রতারিত হচ্ছে। এ ছাড়া বিপুল পুঁজি লগ্নি করে প্রতিষ্ঠিত চিনিকলসমূহ বন্ধ হওয়ার সম্মুখীন হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, পবিত্র রমজান মাসজুড়ে চিনির ব্যাপক চাহিদা থাকায় কিছু অসাধু ব্যবসায়ী নিম্নমানের চিনি বাজারজাত করে আসছে। এই চিনিগুলো মূলত চোরাই পথে পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে আসে। অবৈধভাবে প্রবেশকৃত চিনির মান নিয়ন্ত্রণের কোনো ব্যবস্থা নেই। যে কারণে ভোক্তা সাধারণ এই নিম্নমানের চিনি গ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যায় ভুগতে পারেন। এসব নিম্নমানের চিনি মানব শরীরে নানা জটিল রোগের সৃষ্টি করে।

এছাড়া অসাধু ব্যবসায়ীরা দেশি ব্র্যান্ড ফ্রেশ, দেশবন্ধু, তীর, এস আলমসহ বিভিন্ন নামীদামি ব্র্যান্ডের নাম এবং বস্তা ব্যবহার করছে। এসব নিম্নমানের চিনি জালিয়াতি করে ব্র্যান্ডের চিনির বস্তায় ঢুকিয়ে বাজারে ছড়িয়ে দিচ্ছে। এতে করে প্রথমত, ওই সব ব্র্যান্ড আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে ও ব্র্যান্ড ইমেজ নষ্ট হচ্ছে। দ্বিতীয়ত, দিনদিন এসব চিনি জনসাধারণের জীবনে-মরণের বিষয় হয়ে উঠেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সার্বিক বিষয়টি বিবেচনা করে জরুরি ভিত্তিতে অবৈধভাবে নিম্নমানের ভারতীয় চিনি অনুপ্রবেশ বন্ধে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। 

এওয়াইএইচ