ক্রিকেট
এখন মাঠে

নেপালকে হারালেই সুপার এইটে শান্তর দল

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে আর মাত্র এক ম্যাচ বাকি বাংলাদেশের। যেখানে প্রতিপক্ষ নেপালকে হারাতে পারলেই সুপার এইটে নিশ্চিতভাবে জায়গা করে নেবে টিম বাংলাদেশ। সেরা আটে টাইগারদের প্রতিপক্ষ হবে কারা? কবে থেকে শুরু শান্তর দলের সেরা আটের লড়াই?

বিশ্বকাপের আগে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজে বাংলাদেশ দলের হতাশাজনক ভরাডুবি হয়েছিল। যেটা আবার ছিলো টাইগারদের তথাকথিত প্রস্তুতি ম্যাচও। সেই রেশ কাটার আগেই ভারতের বিপক্ষে আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচে বিশাল হার হয় টাইগারদের। এমন অবস্থার মধ্য দিয়ে যাওয়া বাংলাদেশকে নিয়ে বিশ্বকাপে খুব বেশি আশাবাদী ছিলেন না কেউই । তবে ঠিকই শান্ত, রিয়াদদের মনে আত্মবিশ্বাস ছিল। তাদের জন্য শুধু দরকার ছিল মোমেন্টামে ফেরার একটা সুযোগ। যেটা বারবারই ফুটে উঠেছে টাইগারদের কণ্ঠে।

গ্রুপপর্বের প্রথম ম্যাচেই কথা রাখে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে শুরু করে বিশ্বকাপ আসর। পরের ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হারলেও দারুণ লড়াইয়ে নজর কাড়ে মোস্তাফিজ, তাসকিন, তানজিম সাকিবরা। তবে সুপার এইটে উঠতে দরকার ছিল পয়েন্ট। ডাচদের হারিয়ে এই কাজটাও এখন সহজ করে ফেলেছে শান্তর দল। এখন কোনোরকম নেপালকে হারাতে পারলেই কোনো যদি-কিন্তু ছাড়াই পরের পর্ব নিশ্চিত হবে বাংলাদেশের।

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী গ্রুপ এ ওয়ান, বি টু, সি ওয়ান, ডি টু সুপার এইটে খেলবে একই গ্রুপে। নিয়মানুযায়ী বাংলাদেশের সামনে সুযোগ আছে ডি টু হয়ে সুপার এইটে যাওয়ার । আর এমনটা হলে টাইগারদের মুখোমুখি হতে হবে অস্টেলিয়া, ভারত বা আফগানিস্তানের মতো দলের সাথে। এই তিন দলই টানা তিন ম্যাচেই দাপুটে জয়ে সুপার এইটে জায়গা করে নিয়েছে। এর মধ্যে ভারত, অস্ট্রেলিয়ার শক্তিমত্তার কথা বাদ দিলেও আসরে আফগানিস্তান যেভাবে খেলছে নিশ্চিতভাবেই টাইগারদের বিপক্ষেও এগিয়ে থাকবে তারা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সব ম্যাচই কঠিন হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্য।

সেরা আটে কোয়ালিফাই করলে ২১ জুন সুপার এইটে বাংলাদেশের প্রথম প্রতিপক্ষ হতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। এর একদিন পরই ২২ জুন টাইগাররা লড়বে ভারতের বিপক্ষে। আর শেষ ম্যাচ ২৫ জুন আফগানদের বিপক্ষে খেলবে শান্তর দল। সেমিফাইনালে উঠতে হলে প্রতিটি দলকে কমপক্ষে দু'টি করে ম্যাচ জিততে হবে।

এমএসআরএস

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর