দেশে এখন
চট্টগ্রামে গো-খাদ্য মিশিয়ে মসলা তৈরি, আটক কারখানা মালিক
চট্টগ্রামের চাক্তাইয়ে গো-খাদ্য ভূষি মিশিয়ে ভেজাল মসলা তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। সেখানে অভিযান চালিয়ে ক্ষতিকর কাপড়ের রঙ ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিম্নমানের উপকরণে মসলা তৈরির প্রমাণ পায় কর্তৃপক্ষ।

রঙ মিশিয়ে ভেজাল মসলা তৈরির খবর প্রায়ই শোনা যায়। কিন্তু মসলায় গো-খাদ্য ভূষি মেশানোর কথা কখনও জানা গেছে কি? অবাক করা হলেও সত্য, চট্টগ্রামের চাক্তাইয়ে ভেজাল মসলা তৈরির কারখানায় এ কাজটি করা হয় কয়েক বছর ধরে।

এ কারখানার মেঝেতে বস্তায় পড়ে থাকে গো-খাদ্য ভূষি। গুড়ো মরিচের ওজন বাড়াতে ব্যবহার হয় এটি। বস্তা ভর্তি শুকনো মরিচ আছে, যা অতি নিম্নমানের। গুদামঘরের এক কোণায় কয়েকটি পলিথিনের ব্যাগে রঙও লুকিয়ে রাখা ছিল। যা ছিল কাপড়ের রঙ। মানবদেহের জন্য এটি অত্যন্ত ক্ষতিকর। আর এসব রঙ মিশিয়েই তৈরি করা হয় গুড়ো মরিচ। তৈরির পর আবার তা রাখা হয় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে।

শুধু মরিচই নয়, গুড়ো হলুদও তৈরি করা হয় এ কারখানায়। একে তো ভেজাল, তার ওপর নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এ কারখানায়। সবমিলিয়ে কারখানাটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়। সঙ্গে কারখানার মালিককে ৩ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়।

কারখানাটির মালিক অভিযানের খবরে পালিয়ে যেতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আটক করে তাকে। পরে তিনি অপরাধ স্বীকারও করেন। তবে নিজের অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে তিনি গণমাধ্যমের কাছে কথা বলেননি।

ভেজাল রোধে অভিযান অব্যাহত রাখার কথা জানান নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

এমএসআরএস