বিদেশে এখন
৫ লাখ রুবলের চুক্তিতে মস্কোর কনসার্টে হামলা
মস্কোর কনসার্টে হামলায় ১৩৭ জন নিহতের ঘটনায় পুরো রাশিয়াজুড়ে চলছে শোকের মাতম। হামলাকারী ৪ জনের পরিচয় প্রকাশ করে তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয়েছে। হামলার দায়ও স্বীকার করেছেন তারা। তবুও হামলার জন্য এখনো ইউক্রেনকেই দায়ী করছে রাশিয়া।

হত্যাকাণ্ডের ভয়াবহতা এখনো ভুলতে পারছে না রুশবাসী। রাতের আধারে মোম জ্বালিয়ে নিহতদের স্মরণ করেছেন প্রেসিডেন্ট পুতিনসহ সাধারণ মানুষ।

স্থানীয়রা বলেন, 'মস্কোর এ ঘটনায় পরিচিতজনদের নিয়ে অনেক চিন্তিত ছিলাম। এ ধরনের হামলা পুরো বিশ্বের জন্য হুমকি।'

আরেকজন বলেন, 'বিশ্বজুড়ে এখনও সন্ত্রাসীরা ছড়িয়ে আছে। তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সবাইকে এক হতে হবে।'

হামলায় জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার একজন বলেছেন, ৫ লাখ রুবলের বিনিময়ে মস্কোর ক্রোকাস সিটি কনসার্ট হলে হামলার বিষয়ে চুক্তি হয়। রুশ সংবাদ মাধ্যম আরটি'র এডিটর ইন চিফের বরাতে এই তথ্য জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাস। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, হামলার আগেই অর্ধেক অর্থ আগাম পরিশোধ করা হয়।

এদিকে অভিযুক্ত ৪ আসামি দালের্দজন মিরজোয়েভ, মুরোদালি রাচাবালিজোদা, শামসিদিন ফারিদুনি ও মুহাম্মাদসোবির ফায়জভকে মস্কোর একটি আদালতে হাজির করা হয়। এদের মধ্যে তিনজনকে চোখ বেঁধে ও আরেকজনকে হুইলচেয়ারে করে আনা হয়। এ সময় মিরজোয়েভ চোখে কালো দাগ ও রাচাবালিজোদার কানে বড় ব্যান্ডেজ ছিল। ফারিদুনির মুখ ছিল বেশ খানিকটা ফোলা। আর হুইলচেয়ারে থাকা ফায়জভের একটি চোখে গুরুতর আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়।

আদালতে হাজির করে তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকার আনুষ্ঠানিক অভিযোগ গঠন করা হয়। আদালতের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, অপরাধীরা নিজেদের দোষ পুরোপুরি স্বীকার করেছে। এদের মধ্যে একজন তাজিকিস্তানের নাগরিক। বাকিদের পরিচয় এখনো নিশ্চিত করা যায়নি। মামলার তদন্ত কাজের জন্য তাদের আগামী ২২ মে পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয় আদালত।

হামলার তিনদিন পর উদ্ধার অভিযান শেষ হওয়ার ঘোষণা দেন মস্কোর গভর্নর। তবে অনুসন্ধান কাজ চালিয়ে যেতে আশেপাশের এলাকায় অভিযান অব্যাহত থাকবে। ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধার হওয়া শতাধিক মরদেহ থেকে এখন পর্যন্ত ৫০ জনের পরিচয় শনাক্ত করতে পেরেছে কর্তৃপক্ষ। বাকিদের শনাক্তে কাজ চলছে।

গত দুই দশকের মধ্যে রাশিয়ায় সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা এটি। হামলার পরপরই দায় স্বীকার করে ইসলামিক স্টেট বা আইএস। তবে রুশ কর্তৃপক্ষের দাবি, এ ঘটনায় ইউক্রেনের সম্পৃক্ততা আছে। যদিও কোনো তথ্য–প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি রাশিয়া। মস্কোর এমন অভিযোগকে হাস্যকর বলছে ইউক্রেন।

ইএ