সরুয়া
জীবনযাপন
'ইফতার' এখন বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ
ঢাকার রিকশা ও রিকশাচিত্রের পাশাপাশি বতসোয়ানার কনভেনশনে ইউনেস্কোর বিমূর্ত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে ইফতার। সংস্থাটি বলছে, হাজার বছর পুরনো রমজান মাসের বিশেষ এই ধর্মীয় রীতির মাধ্যমে দৃঢ় হয় পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধন।

ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র মাস রমজান। আরবি বর্ষপঞ্জিকার নবম মাসটি মুসলিমদের জন্য বহন করে বিশেষ গুরুত্ব। কারণ এ মাসেই পালন করা হয় ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের অন্যতম সাওম বা রোজা। মুসলিম উম্মাহ এ সময় আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় সূর্যদ্বয় থেকে সব প্রকার পাপ কাজ ও পানাহার থেকে বিরত থাকেন। দিনব্যাপী সিয়াম সাধনার পর সূর্যাস্তের সময় ইফতারের মাধ্যমে ভাঙা হয় রোজা।

হাজার বছর ধরে চলে আসা ইফতারকে এবার অপরিমেয় বা বিমূর্ত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনেস্কো। বুধবার (৬ ডিসেম্বর) আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় সংস্থাটির ১৮তম আন্তঃসরকার কমিটির অধিবেশনে এ ঘোষণা আসে। সামাজিক-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যটিকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য ইউনেস্কোর কাছে যৌথভাবে আবেদন করেছিলো ইরান, তুর্কিয়ে, আজারবাইজান ও উজবেকিস্তান।

হিজরি সাল গণনা শুরুর দ্বিতীয় বছর থেকেই রোজা পালন করে আসছেন মুসলিমরা। আর তখন থেকেই শুরু ইফতারের। ইউনেস্কো বলেছে, পবিত্র মাসটিতে পরিবারের সদস্যরা একসঙ্গে ইফতার করে থাকেন। অনেক সময় পরিবার ছাপিয়ে বড় পরিসরে আয়োজন করা হয় ইফতার। এই ধর্মীয় রীতি পালনে দৃঢ় হয় পরিবারিক ও সামাজিক বন্ধন।

এমএসআরএস
আরও পড়ুন: