দেশে এখন
কালবৈশাখী ঝড়ে আশ্রয় হারিয়ে বিপাকে মানুষ
কালবৈশাখী ঝড়ে সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের ৭ শতাধিক বসতঘর-দোকানপাট ভেঙে গেছে। আশ্রয় হারিয়ে বহু মানুষ বিপাকে পড়েছেন। আর সড়কে গাছপালা ভেঙে পড়ায় যোগাযোগ ব্যাহত হচ্ছে।

আকস্মিক ঝড়ে তিলে তিলে সাজানো সংসার লণ্ডভণ্ড। বসতঘর ভেঙে পড়েছে, উড়ে গেছে টিনের চালা। মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকু হারিয়ে সবাই যেন বিপাকে পড়েছেন। তারপরও নতুন করে জীবন সংগ্রামের চেষ্টা।

রোববার (১ এপ্রিল) রাতে সুনামগঞ্জে আকস্মিক আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড়। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় সদর ও শান্তিগঞ্জ উপজেলা। শান্তিগঞ্জ উপজেলার সদরপুর, চন্দ্রপুর, আস্তমা, পশ্চিম পাগলা গ্রামে অন্তত ৫শ’ বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর, লক্ষণশ্রী ইউনিয়নের দুই শতাধিক বাড়িঘর ঝড়ে উড়ে যায়।

স্থানীয়রা বলেন, ‘ঝড়ে আমাদের সব ঘর-বাড়ি উড়ে গেছে। রাত থেকে ছেলে-মেয়ে নিয়ে খোলা আকাশের নিচে আছি। আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি।’

ঝড়ে উড়ে গেছে জীবন-জীবিকার একমাত্র অবলম্বনও। দোকাপাট ও পোল্ট্রি ফার্ম ভেঙে গেছে। এছাড়া সড়কে বিশাল আকৃতির গাছপালা ভেঙে পড়ায় সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

এদিকে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পুর্নবাসন ও সহায়তায় কাজ করছে বলে জানিয়েছেন শান্তিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

রোববার রাতের এই ঝড়ে সুনামগঞ্জে অন্তত অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এওয়াইএইচ