ক্রিকেট
এখন মাঠে
দ্বিতীয় দিনশেষে শ্রীলঙ্কা ২১১ রানে এগিয়ে
সিলেট টেস্টের দ্বিতীয় দিনশেষে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২১১ রানের লিড শ্রীলঙ্কার। এদিন নিজেদের প্রথম ইনিংসে ১৮৮ রানে অলআউট হয় স্বাগতিকরা। এগিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেটে ১১৯ রান করে শ্রীলঙ্কা।

প্রথমদিনে নাইট ওয়াচম্যান হিসেবে মাঠে নামনো হয় তাইজুল ইসলামকে। স্বীকৃত কোনো ব্যাটার না হলেও বাংলাদেশের ইনিংসে রানের চাকা সচল রাখতে লড়াই করে গেছেন এই ক্রিকেটার।

দ্বিতীয় দিনে ইনিংস শুরু করা জয়ও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ১২ রান করে লাহিরু কুমারাকে উইকেট দেন এই ওপেনার। টপঅর্ডারের দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ে ৫২ রানেই ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

বিপর্যয়ের মুখে তাইজুলকে নিয়ে হাল ধরার চেষ্টা করেন শাহাদাত হোসেন দীপু। দুজনে মিলে বড় জুটির আশাও দেখাচ্ছিলেন। কিন্তু সেই আশায় জল ঢালেন লঙ্কান পেসার লাহিরু কুমারা। ২৬ বলে ১৮ রান করে ইনিংস থামে দীপুর।

সদ্য ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়া লিটনের ব্যাটে ছুটবে রানের ফোয়ারা। এমন প্রত্যাশার কথা জানিয়েছিলেন হেড কোচ হাথুরু। তবে সেই আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি শিষ্য। ক্রিজে সেট হয়ে ওই কুমারাকেই উইকেট দেন লিটন কুমার দাস।

টপ আর মিডল অর্ডার ব্যাটারদের আসা-যাওয়ার মিছিলের মধ্যেই ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেছেন তাইজুল ইসলাম। বাংলাদেশের পুরো ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান এই বোলারের। স্বীকৃত ব্যাটারদের ব্যর্থতার দিনে তার ইনিংসটি প্রশংসা পেতেই পারে। যদিও মাত্র ৩ রানের জন্য মিস হয়েছে ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি।

শেষদিকে মিরাজ-শরিফুল-খালেদরাও টপ অর্ডার ব্যাটারদের চেয়ে বেশি রান করেছেন। তারা ইনিংস বড় করতে পারলে হয়তো দলীয় সংগ্রহ দুইশ’র কোটা পার হতো। কিন্তু রান খরার দিনে এটাই বা কম কিসে? শরীফুল ১৫ আর খালেদ ২২ রান না করলে দেড়শো’র মুখও দেখতো না বাংলাদেশের ইনিংস। সবশেষ ১০ উইকেটের বিনিময়ে স্বাগতিকদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৮৮ রান। অবাক হলেও সত্যি যে টাইগারদের ইনিংসে স্বীকৃত ব্যাটার আর বোলারদের রান প্রায় সমান।

এগিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে লঙ্কানরা। এক প্রান্ত আগলে রেখে খেলে ফিফটি হাঁকিয়েছেন করুণারত্মে। যদিও ফিফটি করেই শরিফুলকে উইকেট দিয়েছেন এই ওপেনার। তৃতীয় সেশনে ৫ উইকেট হারালেও দিনশেষে চালকের আসনে সফরকারীরাই। কারণ এরই মধ্যে দুইশো’র বেশি লিড নিয়েছে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার দল।

ইএ