ক্রিকেট
এখন মাঠে
নাগিন ডান্স থেকে টাইম আউট উদযাপন
নিদহাস ট্রফি থেকে শুরু, সেই নাগিন ডান্সের উদযাপন থেকে এখন চলছে টাইম আউট সেলিব্রেশন। কেউ কেউ তো দু'দলের দ্বৈরথকে বলছেন নাগিন-ডার্বি।

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা লড়াই দিন দিন মাঠ ছাড়িয়ে আলোচনায় বাইরের নানা ইস্যু নিয়ে। বিশেষ করে দু'দলের আউট ও জয় উদযাপনের নানা অঙ্গভঙ্গির দৃশ্যায়ন নিয়ে জোর আলোচনা চলছে।

শুরুটা ২০১৮ সালের নিদহাস ট্রফি নিয়ে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার ম্যাচে মুশফিকের সেই নাগিন ডান্সের কথা সবারই মনে থাকার কথা। সেসময় থেকেই লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচ মানেই নাগিন ডান্সের সেলিব্রেশন।

এরপর থেকেই লঙ্কা-বাংলা সিরিজের আরেক নাম হয়ে যায় নাগিন-ডার্বি। যে নাগিন ডান্স নিয়ে এতো কথা সেই অঙ্গভঙ্গি প্রথম করেন বাংলাদেশের বাহাতি স্পিনার নাজমুল অপু। তার হাত ধরেই বিপিএলে আলোচনায় আসে নাগিন ডান্স উদযাপন।

তবে এক নাগিন উদযাপন আর কতোদিন চলে। এবার নতুন সেলিব্রেশন নিয়ে আলোচনায় দু'দল। যার শুরুটা অবশ্য বিশ্ব আসর থেকে।

ভারত বিশ্বকাপে সাকিব আল হাসান অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে টাইম আউট করা নিয়ে তোলপাড় হয়ে যায় বিশ্ব ক্রিকেটে। যা নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানায় ক্রিকেট বোদ্ধা থেকে শুরু করে দু'দেশের ক্রিকেট ভক্তরা।

বিশ্বকাপের সে রেশ যেনো বয়ে বেড়িয়েছে সিলেট ও চট্টগ্রামে টি-টোয়েন্টি আর ওয়ানডে সিরিজও। সিলেটে সিরিজ জিতে ট্রফি হাতে পুরো শ্রীলঙ্কা দল আবারও মনে করালেন ম্যাথিউসের সেই টাইম আউটের কথা।

কম যায়নি টাইগাররাও। চট্টগ্রামে রিশাদের ব্যাটিং তান্ডবে ওয়ানডে সিরিজ নিজেদের করে নিয়ে পুরস্কার বিতরনীর মঞ্চে আবারও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস বনে গেলেন মুশি। শান্তদের সাথে নিয়ে অনেকটা মজার ছলেই লঙ্কানদের জবাবটা দিলেন মুশফিক।

ইট মারলে পাটকেল খেতে হয়। যথারীতি এই কথার প্রতিফলনই দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা ম্যাচে। যা নিয়ে রয়েছে নেতিবাচক কিংবা ইতিবাচক নানা প্রকিক্রিয়াও।

এমএসআরএস