দেশে এখন

মহাখালী টার্মিনালের দূরপাল্লার বাসে চালু হলো গেটলক সিস্টেম

রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাওয়া দূরপাল্লার বাসের জন্য চালু হলো গেটলক সিস্টেম। এ পদ্ধতিতে নির্ধারিত বাস স্টপেজ ব্যতীত যেখানে সেখানে বাস থামিয়ে যাত্রী নেওয়া নিষেধ। এখন থেকে তা কঠোরভাবে মানতে হবে চালকদের। যাত্রীদেরও সচেতন হবার অনুরোধ ট্রাফিক পুলিশের।

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে মহাখালী টার্মিনাল এলাকা ঘিরে এবার যানজট নির্মূলে কঠোর তৎপরতায় নেমেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। আজ (রোববার, ১২ মে) মহাখালী বাস টার্মিনালে সকাল থেকে ছেড়ে যাওয়া দূর পাল্লার বাসের গেটলক পদ্ধতির উদ্বোধন করা হয়।

এই পদ্ধতিতে নির্ধারিত স্থান ছাড়া যাত্রী তোলা নিষেধ। এখন থেকে তা কঠোরভাবে মানতে হবে চালকদের।

গেটলকের নিয়ম অনুযায়ী, নির্দিষ্ট স্টপেজে বাসের যাত্রী গণনা করা হবে। পরের স্টপেজে যাত্রী ওঠানোর আগে সংখ্যা বেশি হলে দেয়া হবে মামলা। এখন থেকে যাত্রীদের ৫ মিনিটের রাস্তা পার হতে আর ৩০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে না। চালকরাও নিয়ম মেনে চলবেন।

চালকদের একজন বলেন, 'স্টপেজ যেখানে আছে একমাত্র সেখানেই এখন থেকে বাস থামবে। এতে আমাদেরও সুবিধা যাত্রীদেরও সুবিধা। যাত্রীরা কাউন্টারে গিয়ে বাসে উঠবে এতে তাদের হয়রানি কমবে'।

যানজট ভয়াবহ অবস্থা স্বীকার করলেন বাস মালিক সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের নেতারা। বললেন, নিয়মিত চেক করে দেখা হবে যাত্রীর সংখ্যা। প্রথম স্টপেজে দেওয়া নোটে যে যাত্রী সংখ্যা উল্লেখ থাকবে তার বেশি হলে নেওয়া হবে ব্যবস্থা।

মহাখালী বাস টার্মিনাল মালিক সমিতির সভাপতি মো. আবুল কালাম বলেন, 'মহাখালী থেকে ছেড়ে বনানী পর্যন্ত কোনো বাস রাস্তা থেকে যাত্রী তুলতে পারবে না। এর ফলে এই এলাকায় যানজট নিরসন হবে।'

যাত্রীরা যেন যেখানে সেখানে হাত উঁচু করে বাসে না ওঠে সেই অনুরোধ ট্রাফিক পুলিশের।

ট্রাফিক গুলশান বিভাগের ডিসি আব্দুল মোমেন বলেন, 'নির্ধারিত কাউন্টার ব্যতীত সকল জায়গায় গেট বন্ধ করে বাস চলাচল করলে যানজট কমে আসবে।'

তবে এই উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানের পর পরই দেখা যায় বরাবরের চিত্র। মহাখালীর এক স্টপেজ পরেই নিয়মের কোনো তোয়াক্কাই করা হচ্ছে না। রাস্তার মাঝ থেকেই যাত্রী ওঠায় আন্তঃজেলা বাসগুলো।

ইএ

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর