প্রবাস
অর্থনীতি

আমিরাতে বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠানো প্রবাসীদের সম্মাননা

বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণকারী প্রবাসীদের জন্য সম্মাননার আয়োজন করেছে দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেট। শনিবার রাতে ১২৬ জন প্রবাসীর হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী।

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠালে মিলছে সম্মাননা। দেয়া হচ্ছে রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের গতি ধরে রাখতে এই উদ্যোগ অব্যাহত রেখেছে দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেট।

শনিবার রাতে দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ডের এবারের আসরে ১২৬ প্রবাসী বাংলাদেশির হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী। এরমধ্যে রয়েছেন ১৮জন ব্যবসায়ী, ১৩জন পেশাজীবী ও ২০জন সাধারণ কর্মী।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'অবৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রেরণ করলে প্রত্যেকটি ধাপে ধাপে অপমানিত হবেন। আর বৈধ পথে টাকা পাঠালে সবক্ষেত্রে সম্মানিত হবেন।'

প্রবাসীরা বলেন, বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোর বিপরীতে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের দেয়া এই সম্মাননার কারণে আমরা আরও বেশি অনুপ্রাণিত হয়েছি। নিয়মিত বৈধ পথে লেনদেনে আমাদের উৎসাহ বাড়ছে।

এই স্বীকৃতিকে ধরে আগামীতেও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বৈধপথে লেনদেনের পরামর্শ দেন অনুষ্ঠানের অতিথিরা।

বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মো. আবু জাফর বলেন, 'আমরা প্রবাসীদের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করি। কাউকে দেখানোর জন্য কাজ করি না। আপনারাও বৈধ পথে দেশে অর্থ পাঠান।'

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে গত তিন বছরে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। চলতি বছরের প্রথম চার মাসে দেশটি থেকে রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় দেড় বিলিয়ন ডলার। রেমিট্যান্সের এই গতি ধরে রাখতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য ২০২২ সালে চালু করা হয় রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এই সম্মাননার কারণে রেমিট্যান্স প্রেরণের দিক থেকে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছেন আমিরাত প্রবাসীরা।

এভিএস

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর