দক্ষিণ আমেরিকা
বিদেশে এখন

মেক্সিকোর ক্ষমতায় প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট

প্রথমবারের মতো মেক্সিকোর ক্ষমতায় এসেছেন একজন নারী প্রেসিডেন্ট। ভোটের মাঠে এগিয়ে ছিলেন দুই নারী প্রার্থী। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ আনে সম্মিলিত বিরোধী দল। নির্বাচনী প্রচারণার সময় সহিংসতায় প্রাণ হারিয়েছেন ২০ জনেরও বেশি স্থানীয় প্রার্থী।

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রায় ৬০ শতাংশ ভোট পেয়ে ক্ষমতায় বসলেন মোরেনা দলের প্রার্থী ক্লাউডিয়া শেনবাউম। প্রথমবারের মতো নারী প্রেসিডেন্ট পেলো উত্তর আমেরিকার দেশটি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সম্মিলিত বিরোধী দলের প্রার্থী শোচিত গালভেজ পেয়েছেন ২৮ শতাংশ ভোট। এদিকে মাত্র ১০ শতাংশ ভোট পেয়েছেন একমাত্র পুরুষ প্রার্থী হোর্হে আলভারেজ মাইনেজ।

১০ কোটি ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছে প্রায় ৫৮ শতাংশ মানুষ। প্রেসিডেন্ট পদের পাশাপাশি কংগ্রেস সদস্য, আট রাজ্যের গভর্নর এবং মেক্সিকো সিটি'র স্থানীয় সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দেশের সবচেয়ে বড় নির্বাচনের প্রার্থী ছিল প্রায় ২০ হাজার।

মেক্সিকোর পুরুষ নিয়ন্ত্রিত সংস্কৃতিতে শেনবাউমের বিজয় একটি মাইলফলক। ৬১ বছর বয়সী শেনবাউম মেক্সিকো সিটির প্রথম নারী মেয়র ছিলেন। ২০১৮ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত মেয়রের দায়িত্ব পালনের পর প্রেসিডেন্ট পদের লড়াইয়ে নামেন। তিনি দেশটির বিদায়ী প্রেসিডেন্টের সমর্থিত প্রার্থী। জয় পেয়েই মেক্সিকানদের আর্থসামাজিক উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

ক্লাউডিয়া শেনবাউম বলেন, 'আমার দল মেক্সিকোতে নারীদের অধিকার নিয়ে কাজ করবে। মেক্সিকানদের দারিদ্র্যতা থেকে বের করে আনতে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক উপায়ে ভোট হচ্ছে মেক্সিকোতে।'

এদিকে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলেন প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী সম্মিলিত বিরোধীদলীয় প্রার্থী সিনেটর ও ব্যবসায়ী ৬১ বছর বয়সী শোচিত গালভেজ।

তিনি বলেন, 'ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভোটারদের প্রভাবিত করেছে মোরেনা দল। যা নির্বাচনকে সহিংসতার দিকে নিয়ে গেছে। মেক্সিকোর ইতিহাসে সবচেয়ে সহিংস নির্বাচন এটি। গণতন্ত্রকে বাঁচিয়ে রাখার বিশাল সুযোগ আমাদের সামনে। গণতান্ত্রিক উপায়ে ভোটারদের অংশগ্রহণকে সাধুবাদ জানিয়েছে সম্মিলিত বিরোধী দল।'

নির্বাচনী সহিংসতার সঙ্গে প্রচারের সময় লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় স্থানীয় প্রার্থীরা। মেক্সিকোর সরকারি হিসাব মতে, সংঘর্ষে মেক্সিকোজুড়ে প্রাণ হারিয়েছেন ২০ জনেরও বেশি স্থানীয় প্রার্থী। যদিও অন্যান্য সমীক্ষা বলছে নিহতের সংখ্যা ৩৭ জনের ওপর।

বিজয়ী প্রার্থী ছয় বছরের জন্য ক্ষমতা গ্রহণ করবেন আগামী ১ অক্টোবর। মেক্সিকোর সংবিধান অনুযায়ী একজন প্রেসিডেন্ট এক মেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে পারেন। তাই তুমুল জনপ্রিয়তার পরও ক্ষমতা ছাড়তে হলো বিদায়ী প্রেসিডেন্ট লোপেজ ওব্রাদরকে। তবে তার এই জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়েছেন শেনবাউম।

এভিএস

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর