দেশে এখন
ভাঙ্গা থেকে রূপদিয়ায় সর্বোচ্চ গতির ট্রেনের ট্রায়াল রান
প্রথমবারের মতো মালবাহী তিনটি বগি ও দুই পাশে দুই ইঞ্জিন নিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা রেলওয়ে জংশন থেকে যশোরের রূপদিয়া স্টেশনের দিকে ট্রেন ট্রায়াল রান করলো।

আজ শনিবার (৩০ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে ভাঙ্গার বামনকান্দা রেলওয়ে জংশন থেকে ট্রায়াল ট্রেনটি যাত্রা শুরু করে। পরে ট্রেনটি যশোরের রূপদিয়া স্টেশন পর্যন্ত ৮৩.৩ কিলোমিটার পথ চলাচল করে। এসময় ট্রেনের গতি ছিল সর্বোচ্চ ১২০ কিলোমিটার।

রেলওয়ে বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. শামীম হোসেন জানান, ব্রডগেজ রেললাইন দিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে সর্বোচ্চ গতির ট্রেনের ট্রায়াল রান হয়েছে। আমরা সড়কটির অবস্থা বুঝার চেষ্টা করেছি, মালবাহী বগি নিয়ে একবার গিয়েছে আবার ফিরে এসেছে। এভাবে আগামীকাল রোববার দুইবার ট্রেন যাতায়াত করবে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আগামী দুই মাস এভাবেই ট্রায়াল করবো, তারপর জুনের দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রী পরিবহনের সম্ভাবনা রয়েছে।

ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী বলেন, ‘নতুন ট্রেনের এই সংযোগের মাধ্যমে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমের প্রায় ১৯৩ কিলোমিটার দূরত্ব কমবে। পদ্মা সেতু নিয়ে আরও একটি স্বপ্ন পূরণের আর একধাপ দূরে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ। পদ্মা সেতু হয়ে রেলপথে রাজধানীতে পৌঁছানোর এই অঞ্চলের মানুষের স্বপ্ন এখন হাতছোঁয়া দূরত্বে। সড়কপথের পর এবার ট্রেনে সহজে ঢাকায় যাওয়ার আরও একধাপ অগ্রগতি হলো।’

স্থানীয়রা জানান, ‘ট্রেনের এই সংযুক্তির মধ্য দিয়ে রাজধানীর সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যোগাযোগ ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ হবে। কারণ, ফরিদপুর, যশোর, মাগুরা, নড়াইলসহ এই অঞ্চলের মানুষের অন্যতম জীবিকার মাধ্যম হচ্ছে কৃষি। তাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্যটি রাজধানীতে নিতে অনেক খরচ হয়। ট্রেন চালু হলে পণ্যের পরিবহন ব্যয় কমবে, একইসঙ্গে এতে ভোক্তরা ন্যায্য মূল্য পাবে।

ভাঙ্গা রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার মো. জিল্লুর রহমান জানান, ট্রায়ালের প্রথমদিন ট্রেনের চালক হিসেবে ছিলেন সাখাওয়াত হোসেন।

এসময় বাংলাদেশ রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, চায়না ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এওয়াইএইচ