দেশে এখন
নাটোর-বগুড়া সড়কের পাশে জমির দাম বৃদ্ধি
উত্তরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার নাটোর-বগুড়া মহাসড়ক ফোরলেন করায় সুফল পাচ্ছেন শিল্প উদ্যোক্তারা। সড়কের দু'পাশে গড়ে উঠছে শিল্পকারখানা। সেই সঙ্গে জমির দামও বাড়ার পাশাপাশি গড়ে উঠছে আবাসন প্রকল্প। সড়ক ঘিরে বাণিজ্যিক কার্যক্রম বাড়ায় নতুন কর্মসংস্থানের আশা স্থানীয়দের।

একবছর আগেও এই মহাসড়কের আশেপাশের অনেক জমি ব্যবহার হতো কৃষিকাজে। তবে ক্যালেন্ডারের পাতা ঘুরতেই বদলে যায় এই এলাকার চিত্র। ফোর লেন হওয়ায় আন্তঃজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থায় যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। এরপরই শিল্প উদ্যোক্তাদের কাছে কদর বেড়েছে এই এলাকার জমির। জায়গার দাম বেড়েছে দ্বিগুণ।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, 'এখানে যারা শিল্প-কারখানা করবে তারা জমি দেখছে। এর ফলে জমির দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে।'

আরেকজন বলেন, 'আগে ১ লাখ টাকা শতাংশ জমির দাম ছিল। এখন বৃদ্ধি পেয়ে আড়াই লাখ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।'

মহাসড়কটি প্রশস্ত হওয়ায় উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে কমেছে দূরত্ব। কাঁচামাল পরিবহন সহজ হওয়ায় সড়কের দু'ধারে গড়ে উঠেছে শিল্প প্রতিষ্ঠান। আবার অনেকে সেখানে গড়ে তুলেছেন আবাসন।

নাটোর বিসিক শিল্প মালিক সমিতি সভাপতি প্রদীপ কুমার আগরওয়াল বলেন, 'রাস্তা চওড়া হওয়ার কারণে এখন প্রচুর পরিমাণে শিল্প-কারখানা করার জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছে মালিকরা এবং আমার বিশ্বাস খুব দ্রুত ওখানে শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে  উঠবে।'

২০১৯ সালে এই মহাসড়ক প্রশস্তের কাজ শুরু করে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর। নির্মাণ খরচ ধরা হয় ৭৪৬ কোটি টাকা। প্রকল্পের কাজ পুরোপুরি শেষ হলে একদিকে উত্তর ও দক্ষিণের জেলাগুলোর সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। অন্যদিকে এটি ভূমিকা রাখবে কৃষি পণ্য পরিবহনে।

মহাসড়কটি প্রশস্ত হওয়ায় শিল্পকারখানা স্থাপনে যেমন আগ্রহী হয়ে উঠছে শিল্প উদ্যোক্তারা। বিনিয়োগ করতে চান মহাসড়কের পাশের এসব জমিগুলোতে। এতে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবে এই অঞ্চলের মানুষ।

ইএ