দেশে এখন
বান্দরবানের ব্যাংক ডাকাতিতে কুকি-চিনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
বান্দরবানের ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় সশস্ত্র গোষ্ঠী কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। প্রয়োজনে সেখানে সেনা মোতায়েন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আজ (বুধবার, ৩ এপ্রিল) রাজধানীর সচিবালয়ে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে ব্যাংক লুটের ঘটনায় যা যা করণীয়, তার সবই করছে সরকার। কী কারণে হঠাৎ করে এটি ঘটলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘কুকি-চিন নামের একটি জঙ্গি গোষ্ঠী এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে এখনও বিস্তারিত তথ্য জানা যায়নি। পুলিশ মহাপরিদর্শকের নেতৃত্বে একটি টিম সেখানে রয়েছে।’

ঘটনাস্থলে অপারেশন চলছে উল্লেখ করে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘ব্যাংক লুট করে চলে যাওয়ার পর পুলিশ বিজিবি সেখানে অপারেশন চালাচ্ছে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা সেখানে যোগ দেবে।’

গতকাল রাতে বান্দরবানের রুমায় হামলার পর আজও থানচি উপজেলায় সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতির চেষ্টা করেছে নতুন কেএনএফ। এ সময় বাজার ঘেরাও করে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে তারা।

আরও পড়ুন রুমায় সোনালী ব্যাংকের কত টাকা লুট- এখনও অজানা

বুধবার বেলা ১টার দিকে এই ডাকাতির চেষ্টা হয় বলে জানিয়েছেন সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আফজাল করিম।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে বান্দরবানের রুমায় নতুন সশস্ত্র গোষ্ঠী কেএনএফ সোনালী ব্যাংকে হামলা চালিয়ে টাকা ও ১৪টি অস্ত্র লুট করেছে বলে খবর পাওয়া যায়। অপহরণ করে নিয়ে যায় ব্যাংকটির ম্যানেজারকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাজারে বেশ কয়েকজনের মোবাইল ফোন ছিনতাই করে ২৫ থেকে ৩০ জন সদস্যের দলটি।

এদিকে অপহৃত ব্যাংক ম্যানেজার নিজাম উদ্দিনের এখনও কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন।

এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন, পুলিশের চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত ডিআইজি মাহফুজুর রহমান, সোনালী ব্যাংক চট্টগ্রাম বিভাগের জিএম ও মুসা খান।

আরও পড়ুন এবার সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের থানচি শাখায় ডাকাতির চেষ্টা

আসু