কাঁচাবাজার
বাজার

গরমে রাজধানীর বাজারে বেড়েছে মুরগির দাম

রাজধানীর বাজারে তীব্র গরমের প্রভাব পড়েছে। গরমে ব্রয়লার মুরগির দাম কমলেও দেশি এবং সোনালি মুরগির দাম বেড়েছে। মাছের বাজারে ক্রেতা কমলেও কমেনি দাম।

সাপ্তাহিক ছুটিতে রাজধানীর কাপ্তানবাজারে দেশি মুরগি এক সপ্তাহ আগেও ৬৫০ টাকায় কেনা গিয়েছিল সেটিই এখন কিনতে হচ্ছে ৭৫০ টাকায়।

একজন ক্রেতা বলেন, 'এখন মুরগির দাম একটু বেশি। ঈদের ছুটির পর সবাই ঢাকায় আসছে তাই এখন বাজারে একটু চাপ।'

দেশজুড়ে বয়ে চলা তাপপ্রবাহের প্রভাব পড়েছে রাজধানীর বাজারগুলোতে। কাপ্তানবাজার এবং কারওয়ানবাজার ঘুরে দেখা গেল বাজারভেদে দেশি এবং সোনালি মুরগির দাম বেড়েছে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা। দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকায় এবং সোনালি মুরগি ৩৮০ থেকে ৪০০ টাকায়। তবে গরমের কারণে দাম কমেছে ব্রয়লার মুরগির। ২ থেকে ৩ দিন আগেও যে ব্রয়লার বিক্রি হয়েছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায় তা এখন বিক্রি কেজিতে হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়।

ক্রেতাদের আরেকজন বলেন, 'সোনালি মুরগির দাম বাড়ছে কিন্তু ব্রয়লারের দাম একটু কমছে।'

বিক্রেতারা বলছেন, গরমের কারণে বাজারে ক্রেতা কম আসছে পাশাপাশি মুরগির সরবরাহ কমে যাওয়ায় বিক্রিও কমেছে।

মুরগি বিক্রেতাদের একজন বলেন, 'গরমে খামারীদের মুরগি মারা যাচ্ছে। যেখানে ২শ’ গাড়ি আসার কথা সেখানে আসছে ১০ থেকে ১২ টা।'

অপরিবর্তিত রয়েছে গরু এবং খাসির মাংসের বাজার। বাজারভেদে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকায় এবং খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১৩শ টাকায়। তবে গরমের কারণে মানুষ মাংস কম কিনছেন বলে জানায় বিক্রেতারা।

ক্রেতাদের একজন বলেন, 'রমজান থেকে এখনো দাম কমে নাই। ৭৫০ টাকা করে কিনতে হচ্ছে।'

মাংস বিক্রেতাদের একজন বলেন, 'গরমের কারণে মানুষজন গরুর মাংস কম খাচ্ছে। এখন ব্যবসা কোনো রকম চলছে।' 

মাছের বাজারে গরমের কারণে ক্রেতা কমলেও কমেনি দাম। ঈদের পর সব ধরনের মাছে দাম বেড়েছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা। বিক্রেতারা বলছেন পুকুর, নদীর পানি শুকিয়ে যাওয়ায় মাছের সরবরাহ অনেকটাই কমেছে।

মাছ বিক্রেতাদের একজন বলেন, 'নদীর মাছ ১০ থেকে ২০ টাকা করে বাড়ছে। নদী পানি শুকিয়ে যাচ্ছে মাছ কম এখন।'

তীব্র তাপপ্রবাহ চলমান থাকলে লোকসান বাড়বে বলে শঙ্কা বিক্রেতাদের।

ইএ

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর