পুঁজিবাজার
অর্থনীতি
পুঁজিবাজারের প্রধান সূচকে বড় পতন
দুটি বড় উৎসব ঘিরে টানা পাঁচদিনের বিরতির পর সোমবার (১৫ এপ্রিল) লেনদেন শুরু হয়েছে ব্যাংক, বীমা, সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও শেয়ারবাজার। তবে পুঁজিবাজারে লেনদেনের প্রথম দিনে আবারও হতাশায় ডুবলেন বিনিয়োগকারীরা। এদিন লেনদেন কমেছে। বড় পতন হয়েছে প্রধান সূচকে৷

রমজানে পরিবর্তিত সূচি বদলে আগের সময়ে ফিরেছে পুঁজিবাজার। প্রথমদিনে লেনদেন হয়েছে মাত্র ৩৭৫ কোটি ৫৩ লাখ কোটি টাকার।

লেনদেন খরায় সকাল ১০টা থেকে প্রধান সূচকের ধারাবাহিক পতন দিনশেষে ঠেকেছে ৮৫ পয়েন্টে। ডিএসইএক্স দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৭৭৮ পয়েন্টে। শরীয়া ও ডিএস ৩০ সূচকও হারিয়েছে পয়েন্ট।

নির্বাচন পরবর্তী বাজার চাঙ্গা হওয়ার প্রত্যাশা থাকলেও গেলো দেড় মাসের লেনদেনে ব্রোকারেজ হাউজগুলোর ঋণের অঙ্ক বড় হয়েছে। তবুও সুদিন আসছে না পুঁজিবাজারে।

বাজার বিশ্লেষকরা মনে করেন, সুশাসনের মাধ্যমেই ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের পুঁজি হারানোর ভয় দূর করে বাজারে আস্থা ফেরাতে হবে। ব্যাংকের পাশাপাশি বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে স্টক এক্সচেঞ্জের নীতি নির্ধারণে।

প্রথম দিনের লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ৯০ ভাগ শেয়ারের দাম কমেছে। চট্টগ্রাম স্টকেও সূচক পড়েছে ১৮৯ পয়েন্ট৷

অন্যদিকে ব্যাংক ও অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এদিন লেনদেন শুরু হয় পূর্ণ লোকবল নিয়ে। তবে ছুটির পর বহু লোক কর্মক্ষেত্রে বা রাজধানীতে না ফেরায় গ্রাহক চাপ কম দেখা যায়। ঈদ ও নববর্ষের উৎসবে টাকা উত্তোলনের হিরিক থাকলেও প্রথম দিন থেকে গ্রাহকের টাকা জমা দেয়ার কাজ দেখা যায় বেশি।

এভিএস