দেশে এখন
সমরাস্ত্র প্রদর্শনীর শেষদিনে দর্শনার্থীর ভিড়
স্থল, নৌ ও আকাশথের নিরাপত্তার সাথে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময় থেকে লড়াই করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী। এই বাহিনীগুলো ৫৩ বছরে তাদের বহরে যুক্ত করেছে নানা আধুনিক সমরাস্ত্র।

যুদ্ধকালীন সময় থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সশস্ত্র বাহিনীতে যুক্ত সমরাস্ত্রের প্রদর্শনী আজ শনিবার (৩০ মার্চ) শেষ দিন ছিলো। রাজধানীর তেজগাঁওয়ের পুরাতন বিমানবন্দরে ৫ দিনব্যাপী এই প্রদর্শনীতে তুলে ধরা হয় সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর কার্যক্রম।

সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত এই প্রদর্শনীতে যেমন জানা গেছে দেশের যুদ্ধকালীন সময়কার ইতিহাস, তেমনি ফোর্সেস গোল পূরণে যুক্ত নতুন অস্ত্র ট্যাংক ও বিমানের আধুনিক রূপ দেখে শিশুরা আগ্রহী হচ্ছে সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি।

এক শিশু বলে, বাবার সঙ্গে আসছি, ট্যাংকে উঠেছি। অনেককিছু দেখেছি, অনেক মজা লেগেছে।

অভিভাবকরাও খুশি তাদের সন্তানদের দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে ধারণা দিতে পেরে। এক অভিভাবক বলেন, ‘প্রতিটি দেশের সামরিক শক্তি থাকে। বাংলাদেশের যে সামরিক শক্তি আছে, সেটি দেখানোর জন্যই সন্তানদের নিয়ে আসছি।’

সমরাস্ত্রের পাশপাশি শিশু-কিশোররা হেলিকপ্টার ড্রপ, যুদ্ধের নানা কৌশল সরাসরি দেখেছে। এছাড়া বাহিনীগুলোর তৈরি নানা যুদ্ধ সরঞ্জাম সম্পর্কে জানতে পেরেছে।

এর আগে গত ২৪ মার্চ এই প্রদর্শনীতে বিমান বাহিনীর নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি বঙ্গবন্ধু বেসিক ট্রেইনার এয়ারক্রাফট উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভবিষ্যতে বাংলাদেশেই যুদ্ধবিমানসহ যাত্রীবাহী বিমান তৈরির পরিকল্পনার কথাও জানান সরকারপ্রধান।

এওয়াইএইচ