দেশে এখন , কাঁচাবাজার
বাজার
সুনামগঞ্জে মজুত করা পেঁয়াজে পচন
একদিকে বাজারে বেড়েছে সরবরাহ। অন্যদিকে যেকোন সময়ে দেশে ঢুকবে আমদানি করা পেঁয়াজ। এ অবস্থায় কয়েকদিনের ব্যবধানে অর্ধেকে নেমেছে দাম। এতে অধিক লাভের আশায় মজুত করা পেঁয়াজ গুদামে পচতে শুরু করেছে।

দুই তিন সপ্তাহ আগেও সুনামগঞ্জের বাজারে পেঁয়াজের দর ছিল আকাশছোঁয়া। তবে বাজারে নতুন পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়ায় এবং আমদানির খবরে বছরজুড়ে উড়তে থাকা নিত্যপণ্যটির এবার পতন হয়েছে। ফলে বিক্রি করতে না পারায় অসাধু ব্যবসায়ীর মজুত করা পেঁয়াজে পচন ধরেছে। তাই রোদে শুকিয়ে পচন ঠেকানোর প্রাণপন চেষ্টা তাদের।

তাদের একজন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম। অধিক লাভের আশায় ৩০০ বস্তা পেঁয়াজ নিজস্ব গুদামে মজুত করেন। এরমধ্যে প্রায় ৫০ বস্তা পেঁয়াজ বাড়তি দামে বিক্রিও করেন। তবে বাকি পেঁয়াজে ধরেছে পচন।

তিনি বলেন, '৭০-৭৫ টাকা কেজিপ্রতি কিনেছি। এখন বাজারে ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। আমাকেও বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে।'

রোদে শুকিয়ে পচন ঠেকানোর চেষ্টা করছেন অবৈধ মজুতদাররা। ছবি: এখন টিভি

ক্রেতারা বলছেন পেঁয়াজের দাম কমায় স্বস্তিতে তারা। মজুতদারি ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার দাবি তাদের। বলেন, যখন বাজারে সংকট ছিল তখন যদি তারা বিক্রি করতো তাহলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হতো। পেঁয়াজ এখন ৩৫-৪০ টাকা বিক্রি হয়। এখন নষ্ট হচ্ছে।

অবৈধ মজুত ঠেকাতে বরাবরই সচেষ্ট আছেন বলে জানান ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আল আমিন। বলেন, 'আমাদের অভিযানের প্রভাব পড়েছে। যে কারণে পেঁয়াজসহ আরও অনেক পণ্যের দাম কমেছে। যদি কেউ অবৈধ মজুত করে আমরা তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।'

সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, 'যারা বেশি মুনাফার লোভে মজুত করেছিলেন এটা তাদের কৃতকর্মের ফল। এখন আফসোস ছাড়া আর কিছু করার নাই। হয়তো পরবর্তীতে আর মজুত করবেন না।'

রমজান মাসের শুরুতে সুনামগঞ্জের বাজারগুলোতে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ছিল ১১০ থেকে ১২০ টাকা। যা এখন কমে এসেছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়।

এভিএস