দেশে এখন

সিলেটে পাহাড় ধসে ৩ জনের প্রাণহানি, আহত ১০

সিলেটে পাহাড় ধসের ঘটনায় নিখোঁজ ৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। স্থানীয়দের অভিযোগ, সিটি করপোরশনের অপরিকল্পিত উন্নয়নে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তারা। আর সিটি করপোরেশন বলছে, যত্রতত্রভাবে পাহাড় কেটে বাড়ি নির্মাণের কারণেই ঘটছে এমন দুর্ঘটনা। আগামীতে এমন ঘটনা রোধে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি আরোপ করেন সিটি মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

সোমবার ( ১০ জুন) ভোর ৬টা। ভারি বৃষ্টিপাতে হঠাৎ করেই সিলেটের চামেলিবাগ এলাকায় পাহাড় ধসে চাপা পড়ে ৩টি আধাপাকা ঘর।

স্থানীয়রা জানান, কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই মাটিতে চাপা পড়েন ৩টি পরিবারের ১৩ জন সদস্য। পরে খবর পেয়ে উদ্ধার অভিযান শুরু করে ফায়ার সার্ভিস। প্রায় ৬ ঘণ্টার চেষ্টায় ১০ জনকে জীবিত উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এছাড়া উদ্ধার অভিযানে মেলে একই পরিবারের ৩ জনের মরদেহ।

স্থানীয়দের একজন বলেন, 'আজকের এই ঘটনায় আমরা খুবই আতঙ্কে আছি। রাতে ঘুম হবে না। কখন আবার পাহাড় ধস হয়।'

সিলেট সিটি করপোরেশন বলছে, বৃষ্টি আসার আগে থেকেই পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারীদের সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু কেউ তা আমলে না নেয়ায় এই দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে। তবে ভবিষ্যতে যেন এ ধরনের ঘটনা না ঘটে সেজন্য কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেন মেয়র।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, 'আমি দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বার বার একটি মেসেজ দিচ্ছি সবাইকে আপনারা কেউ পাহাড় কাটবেন না। এইটা কিন্তু কেউ শুনছে না। যে যার মতো পাহাড়ে পাদদেশে ঘর বানাচ্ছে।' 

উদ্ধারকৃতদের ৪ জনকে চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ইএ

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর