পরিষেবা
অর্থনীতি
ফেব্রুয়ারি থেকেই বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর, আজই প্রজ্ঞাপন
পাইকারি পর্যায়ে বর্তমানে ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের খরচ ৬.৭০ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়াবে ৭.০৪ টাকায়, আর খুচরা পর্যায়ে ইউনিট প্রতি খরচ ৮.২৫ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়াবে ৮.৯৫ টাকায়।

গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ৩৪ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৭০ পয়সা বাড়বে। বিদ্যুতের নতুন এ দাম ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন আজই জারি হবে বলেও জানান তিনি। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ তথ্য জানান।

নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির চাপে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ। তার ওপর নতুন করে যোগ হয়েছে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ।

অংকের হিসাবে, দাম বৃদ্ধি পেলে পাইকারি পর্যায়ে বর্তমানে ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের খরচ ৬.৭০ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়াবে ৭.০৪ টাকায়, আর খুচরা পর্যায়ে ইউনিট প্রতি খরচ ৮.২৫ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়াবে ৮.৯৫ টাকায়।

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘোষণার পরই শঙ্কার কথা জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ। গত মঙ্গলবার সচিবালয়ে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানিয়েছিলেন, মার্চ থেকেই নতুন দর কার্যকর হবে। তবে এর দুদিন পর তিনি জানালেন, মার্চ নয় ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখ থেকেই বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর হবে।

তবে ডলারের ঊর্ধ্বগতির কারণে বেশি দামে জ্বালানি কিনতে হচ্ছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ‘এ বছর বিদ্যুতের ভর্তুকি প্রায় ৪৩ হাজার কোটি টাকা। যা একবারে সমন্বয় করা অসম্ভব, এজন্যই ধীরে ধীরে সমন্বয় করার চিন্তা মন্ত্রণালয়ের। এরই অংশ হিসাবে ইউনিটপ্রতি ৩৪ পয়সা থেকে ৭০ পয়সা বাড়ানো হচ্ছে বিদ্যুতের দাম।’

তিনি বলেন, ‘যে কোনো সমন্বয় এবং বৃদ্ধির একটা বিরূপ প্রতিক্রিয়া থাকে। বিদ্যুতের যে দাম বাড়ানো হবে তা বাজার বা জনগণের ওপর তেমন কোন প্রভাব পড়বে না। ’

প্রতিমন্ত্রী জানান, বিদ্যুতের পাশাপাশি ক্যাপটিভ পাওয়ার গ্যাসের দাম ৭৫ পয়সা বৃদ্ধি করা হয়েছে। যা আগামী ৩ বছর পর্যায়ক্রমে সমন্বয় করা হবে।

আসু