চুক্তি
অর্থনীতি
বাংলাদেশ-ভুটানের মধ্যে তিনটি সমঝোতা স্মারকে সই
বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে তিনটি সমঝোতা স্মারকে সই (এমওইউ) হয়েছে। পাশাপাশি বিদ্যমান একটি চুক্তির নবায়ন করা হয়েছে। সোমবার (২৫ মার্চ) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দ্বিপক্ষীয় এ চুক্তি সই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এমওইউ তিনটির মধ্যে রয়েছে ভুটানের থিম্পুতে একটি বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিট প্রতিষ্ঠা, বাংলাদেশের কুড়িগ্রামে ভুটানের জন্য বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা এবং ভোক্তা সুরক্ষায় প্রযুক্তিগত সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা। এ ছাড়া নবায়ন করা হয়েছে সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে সহযোগিতা–সংক্রান্ত একটি চুক্তি।ৎ

দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছান রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে স্বাগত জানান। পরে দু’জন কিছুক্ষন একান্তে বৈঠক করেন।

এরপর রাজা ও প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে আনুষ্ঠানিক বৈঠকে অংশ নেন। বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সার্বিক দিক আলোচনা-পর্যালোচনা করা হয়।

ভূটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে বৈঠক। ছবি: পিআইডি

আলোচনায় বিশেষ করে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি, বাণিজ্য, পর্যটন, কৃষি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এর আগে সোমবার সকাল ১০টার দিকে একটি বিশেষ ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান ভুটানের রাজা ও তার সফরসঙ্গীরা। স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশে চারদিনের সফরে এসেছেন জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক।

সফরের দ্বিতীয় দিন ২৬ মার্চ ভোর সাড়ে পাঁচটায় সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে যাবেন ভুটানের রাজা। এসময় সেখানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও উপস্থিত থাকবেন।

প্রথম দেশ হিসেবে ভুটানই প্রথম বাংলাদেশকে স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল। ৫৪তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ভুটান রাজার বাংলাদেশ সফরে দু'দেশের সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে, বাড়বে ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিধি, এমনটাই প্রত্যাশা করছেন সংশ্লিষ্ট সবাই।

আসু