জেলা থেকে অন্য জেলায় গাড়ি ঢুকলেই দিতে হয় চাঁদা
ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে সড়ক-মহাসড়কে পশুবাহী ট্রাক থেকে চাঁদা না নিতে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। তাতে খামারি ও গৃহস্থরা আশায় বুক বাঁধলেও তাদের সে প্রত্যাশা ভেঙে পড়তে সময় লাগেনি মোটেও। হাটে আগত ট্রাকচালক ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগের মতো প্রতিটি রুটে গবাদিপশুবাহী ট্রাক থামিয়ে চাঁদা নেয়া না হলেও অনেক স্পটে থেমে নেই চাঁদাবাজি। যার প্রভাব পড়েছে পশুর দামের ওপর, গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা।