ক্রিকেট
এখন মাঠে
একাদশে না রাখায় অবসর নিলেন ওয়্যাগনার
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট স্কোয়াডে থাকলেও একাদশে রাখা হবে না জেনে অবসরের ঘোষণা দিলেন নিউজিল্যান্ডের পেসার নেইল ওয়্যাগনার। কোচ গ্যারি স্টিডের সঙ্গে আলোচনা করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

নিল ওয়াগনারের জন্ম দক্ষিণ আফ্রিকায়। ২০০৮ সালে নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটের দল ওটাগোর হয়ে খেলতে দেশটিতে পাড়ি জমান। পরে সেখানেই থিতু হন। নজরকাড়া পারফর্ম করে ২০১২ সালে জায়গা করে নেন নিউজিল্যান্ডের টেস্ট দলে। তারপর থেকে কিউই ক্রিকেটে সার্ভিস দিয়েছেন ১ যুগ।

চলতি মাসে নিজ জন্মভূমি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলেছেন সবশেষ ম্যাচ। সেটাই যে তার ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ ছিল, তা তিনি নিজেও জানতেন না। কারণ বৃহস্পতিবার শুরু হতে যাওয়া অজিদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের জন্য নিউজিল্যান্ড স্কোয়াডে রাখা হয়েছিল তাকে। তবে জানানো হয়েছে প্রথম ম্যাচের একাদশে রাখা হবে না এই পেসারকে। তা শুনে দলটির কোচ গ্যারি স্টিডের সঙ্গে আলোচনা করে অবসরের ঘোষণা দেন নিল ওয়াগনার।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়লেও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটটা চালিয়ে যেতে চান ৩৭ বছর বয়সী এই বোলার।

১২ বছরে নিউজিল্যান্ডের হয়ে কোনো ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টি খেলার সুযোগ হয়নি তার। কিন্তু টেস্ট ফরম্যাটে ৬৪ ম্যাচ খেলে তার অর্জনটা নেহায়েত কম নয়। কারণ তার উইকেট সংখ্যা ২৬০টি। বোলিং গড়ও কম। মাত্র ২৭.৫৭। নিউজিল্যান্ডের টেস্ট ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি এই বোলার অভিজাত ফরম্যাটে দলকে শীর্ষে নিয়ে যেতে রেখেছেন বড় ভূমিকা।

ক্যারিয়ারে ৬৪ ম্যাচের ৩২টিতেই জিতেছেন তিনি। জয়ী ম্যাচে ২২ গড়ে তার শিকার ১৪৩ উইকেট। অর্থাৎ বলা যেতে পারে, নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের জন্য মনে রাখার মতো পারফরম্যান্সই উপহার দিয়েছেন নিল ওয়াগনার। টেস্টের অন্যতম সেরা বোলার হিসেবে নিশ্চয়ই তিনি থাকবেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটপ্রেমীদের মনিকোঠায়।

এমএসএ