দেশে এখন

দখলে-দূষণে অস্তিত্বহীন খোয়াই নদী

অবশেষে শুরু হয়েছে হবিগঞ্জ শহরবাসীর দীর্ঘ প্রতিক্ষিত পুরাতন খোয়াই নদী পরিস্কারের কাজ। হবিগঞ্জ পৌরসভা ও স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্যোগে চলছে নদী থেকে ময়লা পরিস্কারের কাজ। শহরবাসীকে জলাবদ্ধতার হাত থেকে রক্ষা করতে বর্ষা মৌসুমের আগেই পুরো নদী পরিস্কার ও খনন কাজ শেষ করতে চায় হবিগঞ্জ পৌরসভা।

দেখে বোঝার উপায় নেই, এখানে এক সময় খরস্রোতা নদী ছিল। ক্রমাগত দখল-দুষণে হবিগঞ্জের পুরাতন খোয়াই নদী এখন অস্তিত্বহীন। কোথাও কোথাও বিলিন হয়ে গেছে নদীর অংশ। দুর্গন্ধ আর মশার উপদ্রবে নাজেহাল আশপাশের বাসিন্দারা।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কয়েকবার দখল-দুষণের বিরুদ্ধে উদ্যোগ নেয়া হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। অবশেষে স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় নদীটি পরিস্কারের কাজ শুরু করেছে হবিগঞ্জ পৌরসভা।

নদী পরিষ্কার করা হলে জলাবদ্ধতা এবং মশার উপদ্রব কমবে। সেই সাথে চলাফেরার একটি নানন্দিক পরিবেশ পাবে বলে জানান স্থানীয়রা

বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের অন্যতম আঁধার খোয়াই নদী ভরাট, শহরের জলাবদ্ধতার প্রধান কারণ। তাই বর্ষা মৌসুমের আগেই পুরো নদী পরিস্কার ও খনন শেষ করতে চায় পৌর কর্তৃপক্ষ।

হবিগঞ্জ পৌরসভা মেয়র আতাউর রহমান সেলিম জানান, দুর্গন্ধ এবং মশার উপদ্রব দূর করতে বর্ষাকালের আগে যত দ্রুত সম্ভব এই নদী পরিচ্ছন্ন করা হবে এবং ময়লা আবর্জনা যেন না ফেলা হয় তা নিয়ে জেলা প্রশাসকের সাথে সভা হয়েছে।

এদিকে জেলা প্রশাসন বলছে, শহর পরিচ্ছন্ন ও জলাবদ্ধতামুক্ত রাখতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। প্রথমে খোয়াই নদী পরিস্কারের কাজ শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকি কাজও সম্পন্ন হবে।

হবিগঞ্জের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. সাদিকুর রহমান জানান, প্রশাসনিক সহযোগিতায় খোয়াই নদীকে আবার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া হবে। সেই সাথে শহর পরিচ্ছন্ন রাখতে নাগরিকদের আহ্বানও জানান তিনি।

শুধু দুষণমুক্ত নয়, একই সাথে দখলমুক্ত করে নদীর দু'পাশে ওয়াকওয়ে নির্মাণের দাবি শহরবাসীর।

কেফা

এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবর